গুগল অ্যাডসেন্স - TechJano

গুগল অ্যাডসেন্স

গুগল অ্যাডসেন্স

গুগল অ্যাডসেন্স নিয়ে কাজ করতে যা যা লাগবে

গুগল অ্যাডসেন্স নিয়ে কাজ করতে যা যা লাগবে তার সবকিছুই আপনার হাতের নাগালে। অর্থাত্ কোনো কিছুই নাগালের বাইরে নয়। আপনার যে ওয়েবসাইট লাগবে, তার জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং স্পেস আপনি পেয়ে যাবেন বাংলাদেশের ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কাজের সঙ্গে জড়িত প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। আর ওয়েব পেজ ডিজাইন এবং কনটেন্ট নিয়ে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় টুলস (ওয়ার্ডপ্রেস, জুমলা) আপনি বিনা মূল্যেই সংগ্রহ করতে পারবেন। ওয়েবসাইটের ঝামেলা শেষ হলে সময়মতো গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে আপনার একটি জি-মেইল অ্যাকাউন্ট লাগবে। আর কিছুই লাগবে না।

গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য সাইন আপ করতে আগ্রহী হলে ভিজিট করুন—

https://www.google.com/adsense/start/#/?modal_active=none

ওয়েবসাইট চালু করা প্রসঙ্গে

আগে ভালো করে ব্যাপারটা বুঝে নিন। চট করেই কারও কথামতো সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবেন না। আপনার ওয়েবসাইটে ৫০০ আর্টিকেল, অনেক ইমেজ এবং ইউটিউব ভিডিও থাকলেও আপনার ১ গিগাবাইটের বেশি ওয়েব হোস্টিং স্পেসের প্রয়োজন হবে না। আর ১ বছরের মধ্যে ওয়েবসাইটের আর্টিকেলের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাওয়ার কথা আসবে না। তাই ১ বছরের জন্য ১ গিগাবাইটের বেশি হোস্টিং স্পেস বাড়তি টাকা দিয়ে ভুলেও নিতে যাবেন না। পরবর্তী বছরে না হয় প্রয়োজন হলে বেশি করে ওয়েব হোস্টিং স্পেস নিয়ে নেবেন। এভাবে চিন্তা করলে আপনার ডোমেইন রেজিস্ট্রেশনসহ খরচ পড়বে ২০০০ টাকা মাত্র। তবে মনে রাখবেন, পরিকল্পিত যেকোনো জিনিসই ভালো। তাই অনেকে আগেই নিশ্চিত হয়ে নেয় ৫ থেকে ১০ বছরের মধ্যে তার ওয়েবসাইটকে কোন জায়গায় নিতে হবে এবং তার জন্য কী পরিমাণ জায়গা প্রয়োজন হবে। তারা একবারেই ৫ থেকে ১০ বছরের জন্য ওয়েব হোস্টিং এবং ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করিয়ে নেয়। এতে করে একটি ভালো পর্যায়ে যাওয়ার হঠাত্ করে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে অর্থাভাবে কিংবা সময়ের অভাবে আপনার সুন্দর ওয়েবসাইটটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে না। এবার আসি ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রসঙ্গে। এ কাজটি সহজ করে দিতে পারবে ওয়ার্ড প্রেসের মতো শক্তিশালী সিএমএস। সিএমএস মানেই হচ্ছে কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। এটি ইন্টারনেট থেকে আপডেট ভার্সন বিনা মূল্যেই ডাউনলোড করে নেওয়া যাবে। এ ছাড়া গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য ওয়ার্ডপ্রেসে কাজ করা সহজ। যা নিয়ে আমরা এখনি আলোচনায় আসছি।

Leave a Comment